Updated: Jul 19

আমাদের সূর্য মেরুন নাড়ির যোগ সবুজ ঘাসে ।

আমাদের খুঁজলে পাবে, সোনায় লেখা ইতিহাসে..

হ্যাঁ, সেই মোহনবাগান, ১৮৮৯ সালে যার যাত্রা শুরু। ভূপেন্দ্রনাথ বোসের হাত ধরে তৈরি হয়েছিল সেই সবুজ মেরুন বাহিনী।

সোনায় মোড়া ইতিহাসের পাতা ঘাটতে বসলে দেখা যায়, পরাধীন ভারতে একটি স্বাধীন ক্লাবের চোখরাঙানির কাছে পরাজিত হতে হয়েছে ইংরেজদেরও।

১৯০৪ সালে প্রথম জেতা ট্রফি, কোচবিহার কাপ। সেই শুরু। তারপর পথে পথে জিতে নেওয়া ১৬টি ডুরান্ট কাপ, ১৪টি রোভার্স, ২২টি IFA শিল্ড, ৩টি ন্যাশনাল ফুটবল লীগ, ২টি আই লীগ এবং আরো অনেক।

১৯১১ সালে ইস্ট ইয়র্কসায়ার রেজিমেন্ট কে হারিয়ে, স্বাধীনতার স্বাদে বাঙালির ফুটবলে বেঁধে চলা শুরু। এরপর অনেক উঁচু নিচু পথ পেরিয়ে চলা ইস্টবেঙ্গলকে, মোহামেডানকে পাশে নিয়ে।

তখন উদ্যোক্তাদের অভাবে ভারতীয় ফটবল ধীরে ধীরে মৃতুপথে। তারপর এল সাল ২০১৪। ভারতের এই মৃতপ্রায় ফুটবলকে বাঁচানোর তাগিদে ফেডারেশনের সাথে এগিয়ে এলো কিছু শিল্পোদ্যোক্তা। মুনাফা অর্জনের লক্ষ্যে শুরু হলেও, ফুটবলকে উপকৃত ভেবে শুরু নতুন পথ, ইন্ডিয়ান সুপার লীগ (ISL)।

অন্য বড় শহরের পাশে কলকাতার 'আতলেতিকো ডি কলকাতা' উঠে এলো গোয়েনকা আর সৌরভ গাঙ্গুলির হাত ধরে। উত্তেজনার বাঙালি দেখলো তাবড় বিদেশি খেলোয়াড়দের শিল্প।

অনুশীলনে উপকৃত থেকে উঠে এলো অনেক তরুণ প্রতিভা। কিন্তু বছর তিনেকেই ঝিমিয়ে পড়লো এই লীগ। নির্মাতারা বুঝলো, বাঙালির ফুটবল আবেগ। তড়িঘড়ি আবার ফেডারেশনের দায়গ্রস্ত।

ইস্টবেঙ্গল, মোহনবাগান ছাড়া এই লীগের পুনরুদ্ধার সম্ভব নয়। অগত্যা নতুন নিয়ম, নতুন সমাধান। ATK-র পাখির চোখ খুঁজে নিলো অর্থাভাবে ধুঁকতে থাকা সেই ঐতিহ্যময় আবেগকে, সেই মোহনবাগানকে।


সদ্য আই লীগ বিজয়ীদের ৮০% ক্ষমতার বিনিময়ে ২০২০ এর জানুয়ারিতে Legal Merger হলো ISL খেলার উদ্দেশ্যে। পুরোনো আবেগকে এক রেখে এগিয়ে যেতে প্রস্তুতি শুরু হলো নতুন জন্মের। কিছু পিছুটান, কিছু আগামী সব নিয়ে নতুনভাবে তৈরি নতুন পথে চলার জন্য। ATK Mohunbagan কি পারবে তাদের নতুন পথে সাফল্য পেতে?

আপনাদের উত্তরের অপেক্ষায় রইলাম Comments Section এ।

**************


 

©2020-www.hatekhori.net

Contact Us at admin@hatekhori.net

You can also email your queries and Articles to the above email